Monday November 20, 2017
বিনোদন
10 November 2017, Friday
প্রিন্ট করুন
সঙ্গীতের কোনো মানচিত্র নেই: তিব্বতীয় কণ্ঠশিল্পী
জাস্ট নিউজ -
ঢাকা, ১০ নভেম্বর (জাস্ট নিউজ) : তেনজিন চোগিয়াল। তিব্বতীয় আলোচিত কণ্ঠশিল্পী ও সঙ্গীতায়োজক। বৃহস্পতিবার 'ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসঙ্গীত উৎসব ২০১৭'-এ সঙ্গীত পরিবেশন করেছেন তিনি। এ আয়োজন ও অন্যান্য বিষয়ে কথা হলো তার সঙ্গে

প্রথম বাংলাদেশ সফর কেমন লাগছে?

বাংলাদেশ সফরের শুরু থেকেই উচ্ছ্বসিত ছিলাম। নিউইয়র্ক থেকে যখন ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেছিলাম, তখন শুধু একটা কথাই মনে হয়েছে, আমরা সেই দেশে যাচ্ছি, যারা সঙ্গীতের পাশাপাশি শিল্প-সংস্কৃতির প্রতিটি বিষয়ের কদর করতে জানে।

এ দেশের মানুষ সম্পর্কে এমন ধারণা কীভাবে হলো?

আমি ১৬ বছরের বেশি সময় ভারতে ছিলাম। ধর্মশালায় যখন ছিলাম, তখন বাংলাদেশের অনেকের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ হয়েছে। জেনেছি তাদের ভালো লাগা, মন্দ লাগার বিষয়টি। অস্ট্রেলিয়ায় স্থায়ী হওয়ার পর সেখানেও এ দেশের অনেকের দেখা পেয়েছি, যাদের বেশিরভাগই সঙ্গীত অনুরাগী। তাদের সুবাদে বাংলা গান শোনা শুরু। আর গান শুনতে শুনতেই অনুভব করেছি, এ দেশের মাটি কতটা সমৃদ্ধ। এখন তো নিয়মিত বাংলা গান শুনি। লোকজ ছাড়াও রবিঠাকুরের গান ভালো লাগে।

ভাষা না বুঝেও এ দেশের লোকজ গানের প্রতি ভালোবাসা জন্মাল কীভাবে?

সঙ্গীতের কোনো মানচিত্র নেই। এমনকি ভাষা, ধর্ম-বর্ণের ভেদাভেদও মানে না কোনো গান। গান হলো অনুভবের। যে এটা হৃদয় দিয়ে অনুভব করতে পারে, সে বোঝে কোন গানে কী সুধা মিশে আছে। আর আমি লোকগানই বেশি গাই, তাই ভাষা বা দেশভেদে গানের মূল স্বাদ গ্রহণ করতে কষ্ট হয় না।

লোকগানের প্রতি আপনার এই আসক্তি কবে থেকে?

আমার মা চমৎকার গাইতেন। তার কণ্ঠে লোকগান শুনতে শুনতেই শিল্পী হওয়ার বাসনা জেগেছিল। শৈশব থেকে তিনি আমার গানের গুরু। আর এখন পৃথিবীর সবার কাছে থেকেই কিছু না কিছু শেখার চেষ্টা করি।

তিব্বতীয় লোকগানের শিল্পী হয়েও ব্যান্ড গড়েছেন ভিন্ন দেশের মিউজিশিয়ানদের নিয়ে, এতে নিজস্বতা ধরে রাখা সম্ভব?

ওই যে বললাম, গান হলো অনুভবের। কী পরিবেশন করছি এবং কীভাবে করছি, তা বড় বিষয় নয়। অস্ট্রেলিয়া এবং জাপানি মিউজিশিয়ান তিব্বতি টিম্বাকটু ব্যান্ডের সঙ্গে যুক্ত হলেও ঘরানা কিন্তু বদলে যায়নি। তারা আমার দলে বাঁশি, তবলার মতো অ্যাকুস্টিক বাদ্যযন্ত্রই বাজাচ্ছে। আমিও ড্রামিয়েন মানের যে তিন তারের গিটার বাজাই, তা পাহাড়ি ও লোকগানের মূল স্বাদ তুলে ধরার জন্যই। হ্যাঁ, আমরা গানে ফিউশন করি, কিন্তু তা মূল থেকে বিচ্যুত নয়। তার প্রমাণ ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসঙ্গীত উৎসবের দর্শক-শ্রোতা পেয়েছেন আশা করি।

(জাস্ট নিউজ/ওটি/১০১৭ঘ.)


মতামত দিন
বিনোদন :: আরও খবর
প্রচ্ছদ
ছবি গ্যালারী
যোগাযোগ